আমি ছুটি পেলেই কানের কাছে বিদ্রোহী কবি ফিসফিস করে কবিতা আবৃত্তি শুরু করে দেয়।

থাকব না কো বদ্ধ ঘরে, দেখব এবার জগৎটাকে,-
কেমন করে ঘুরছে মানুষ যুগান্তরের ঘুর্ণিপাকে।
দেশ হতে দেশ দেশান্তরে
ছুটছে তারা কেমন করে,
কিসের নেশায় কেমন করে মরছে যে বীর লাখে লাখে,
কিসের আশায় করছে তারা বরণ মরণ-যন্ত্রণারে।।

০৫/১১/২০২১, সকালে চোখ খুলেই গু-গুলে খোঁজ শুরু হয়ে গেলো কোথায় যাওয়া যায়।  বেঙ্গালুরুর থেকে মাত্র ১২০ কিলোমিটার দূরে হোগেনাক্কাল জলপ্রপাত। জনশ্রুতি হিসাবে তামিলনাড়ুর সবচেয়ে সুন্দর জলপ্রপাত। হোগেনাক্কাল জলপ্রপাত তামিলনাড়ুর ধর্মপুরী জেলায় অবস্থিত। হোগেনাক্কাল মানে ধূমায়িত/ধূমপানরত পাথর বা ধোঁয়া এবং পাথর। এটি প্রায় ২০ মিটার উচ্চতা থেকে কাবেরী নদীতে আছড়ে পড়ছে। এখানে কোরাকেল রাইডের ব্যবস্থা আছে। এই জলপ্রপাতের অন্যতম আকর্ষণ হচ্ছে এই কোরাকেল রাইড। বাঁশের তৈরি গোলাকৃতির হালকা নৌকা। ডালার মতো এই নৌকা গুলোয় ৫/৬ জন বসতে পারে এবং জলপ্রপাতের নীচে যেতে পারেন।

চমৎকার এই জলপ্রপাতটি কাভেরি নদী থেকে গতিবেগ পেয়ে পাথুরে আড়াআড়ি পথ দিয়ে বয়ে চলেছে যতক্ষণ না এটি ১৪টি ভিন্ন স্থানে ঝর্ণার রূপ নিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে। যদিও পায়ে হেঁটে ঝর্ণাতে প্রবেশ করা যাবে না, তবে পর্যটকরা ঝুলন্ত ব্রিজ ও কোরাকেল রাইড নিয়ে আনন্দ উপভোগ করতে পারবেন। অবিশ্বাস্য প্রাচীন পাথরের খাদের মাঝদিয়ে এবং জলপ্রপাতের মাঝখানে প্রবেশ করা গুলি বাস্তবেই ভয়ংকর সুন্দর বা horrendous!! এমনকি নৌকার মাঝি আপনার অনুমতি নিয়েই জলের মাঝে নিয়ে যাবে। একটু বাড়তি টাকা দিলে মাঝি আপনাদের ঝর্ণার জলের নিচে ভিজতে সাহায্য করবে।

এখানেই অভিষেক আর ঐশ্বর্য রাই এর রাবন সিনেমা সিনেমার শুটিং হয়েছে। এমন কি বিখ্যাত রোজা সিনেমার ও অনেক টা শুটিং এই লোকেশনেই হয়েছে।
হোগেনাক্কালে আরো কিছু দর্শনীয় স্থান:

  • মেট্টুর বাঁধ
  • মেলাগিরি পাহাড়
  • পেনাগ্রাম গ্রাম
  • থেরথামলাই মন্দির

হোগেনাক্কালে কিছু করণীয় কাজ:

  • কাভেরি নদীতে পাওয়া বিভিন্ন রকমের প্রচুর মাছ এই জলপ্রপাতের পাশে ছোট ছোট স্টলে বিক্রি করা হয়। আপনি চাইলেই এই মাছ কিনে রান্না বা ভাজা করিয়ে খেতে পারেন
  • উপভোগ করতে পারেন হোগেনাক্কালের বিখ্যাত তেল মালিশ

ব্যাঙ্গালোরে থাকা কোন বন্ধু যদি যেতে চান তবে বলবো ঘুরে আসুন ভালো লাগবে। বিঃ দ্রঃ – বাসে যেতে চাইলে ধর্মপুরী হলো nearest bus stop। ওখান থেকে অটো বা ছোট গাড়িতে হোগেনাক্কাল। নিকটতম রেলওয়ে স্টেশন: ধর্মপুরী (৪৮ কি.মি.), নিকটতম বিমানবন্দর: সালেম বিমানবন্দর (৯০ কি.মি.)।

যাওয়ার সময় আমার Attibela থেকে ডানদিকে kelamangalam hoad ধরে সোজা Venkaturam হয়ে Denkanikottai হয়ে Oottamalai হয়ে Hogenakkal বা হোগেনাক্কাল (ஒகேனக்கல்)। ফেরার সময় আমার অন্য পথ ধরেছিলাম। Krishnagiri হয়ে Hosur হয়ে ঘুর পথে ফিরেছিলাম।

আমার কথা ফুরালো, নটেগাছটিও মুড়োল এবার সুযোগ পেলেই ঘুরে আসুন। বেরিয়ে পড়ুন নতুন কোন অভিজ্ঞতা অর্জন করতে। জীবন খুব ছোট, উপভোগ করে নিন।

★ আমার লেখায় অজস্র বানান ভুল থেকে যায়, পাঠকের চোখে পড়লে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন ★

Facebook Comments Box