একটা ঠান্ডা সিঙ্গাড়া, একটা ঠান্ডা bread চপ আর একটা ডিমের চপ খেয়ে পেটের জ্বালা ও খাবার দাম মিটিয়ে কিছুক্ষন ভাবলাম, এক্ষুনি পানি খাওয়া ঠিক হবে কি না। প্লাস্টিকের ঢাকনাহীন পানির জগের দিতে তাকিয়ে ভক্তি হলো না। নাহ, পানি আমি বাড়ি ফিরেই খাবো। আজ শুক্কুর বার, অপিসের বড়বাবুরা অনেকেই প্রায় আজ work from home করছেন। এক ঘন্টা আগে আপিস পালিয়ে আসার উপযুক্ত দিন আজ।

বাইক স্টার্ট দিয়ে এক নম্বর গিয়ারে ফেলে রাস্তায় উঠতেই সামনে এক যুবক যুবতী চোখে পড়লো, ওরা আমার সামনে হেটে যাচ্ছে। আমি পেছন থেকে হর্ন না বাজিয়ে ওদের disturb না করে একটু পাস কাটিয়ে একটু পিকআপ টেনে যেই তুলেছি!! ওমনি মেয়েটা পিছন থেকে হাত বাড়িয়ে ছেলেটির কোমর ধরে নিজের দিকে টেনে নিলো। এমন একটা ভাব দেখালো, যে ও না টানলে হয়তো আমি ওর বাবুর উপরে বাইক চড়িয়ে দিতাম।

নাহ, দুজনের কেউই আমার দিকে ফিরেও তাকায়নি। সেই একই ধীর স্থির চালে তারা হাত ধরাধরি করে রাস্তার ধারে দিয়ে হেটে চলেছে। কয়েক মুহূর্তের জন্য নিজেকে কেমন যেন রাবন রাজা মনে হয়েছিলো।

হয়তো যখন ওরা রাতে ফোনে কথা বলবে, মেয়েটি হয়তো বলবে, “বাবু, আমি তোমার কত্তো খেয়াল রাখি। আজ বিকালে দেখলে না ওই বাইক চালকরূপী রাবন রাজা তোমাকে কেমন ধাক্কা দিতে এলো আর আমি জটায়ুর মতো তোমাকে ওর হাত থেকে বাঁচলাম, ওরা সবাই দুস্টু!!”. 👿

★ আমার লেখায় অজস্র বানান ভুল থেকে যায়, পাঠকের চোখে পড়লে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন ★

Facebook Comments Box