আমি তারে আমি চোখে দেখিনি তার অনেক গল্প শুনেছি

সামাজিক মিডিয়া শেয়ার করুনFacebookTwitterWhatsAppEmailLinkedIn

তারে আমি তারে আমি চোখে দেখিনি তার অনেক গল্প শুনেছি
গল্প শুনে গল্প শুনে তারে আমি অল্প অল্প ভালোবেসেছি!!

সত্যি তাকে আমি কোনদিন চোখে দেখিনি, তার অনেক গল্প শুনেছি আমার বাল্যবন্ধু সঞ্জীবের মুখে। আজ সোশ্যাল মিডিয়াতে তার একটি ভিডিও দেখলাম, ভিডিওটি দেখার পর বুকের ছাতি অন্তত ১/২ মিলিমিটার হলেও চওড়া করার সুযোগ পেয়েছি। আমি এটা ভেবেই খুশি হচ্ছি, রজত আমার ফেসবুক বন্ধু।

Emergency কাজে কোন কিছু না ভেবেই ঝাঁপিয়ে পড়েছে সদ্য বিবাহিত রজত। এই তো কিছুদিন আগে ওর বিয়ে ছবি দেখলাম সোশাল মিডিয়ায়, আর আজ দেখলাম ওকে অন্য রূপে। শিলিগুড়ির দিসান হাসপাতালে আজ হঠাৎ ডাক পড়ে ওদের। না, রজত ডাক্তার নয়। হাসপাতালে করোনা রুগীদের চিকিৎসা চলছে, আচমকা হাসপাতালের লিফট বন্ধ হয়ে পরে। তখনই Emergency খবর পৌছায় লিফট কোম্পানির কাছে। খবর পাওয়া মাত্র সাতপাঁচ না ভেবেই ঝাঁপিয়ে পড়ে লিফট মেরামতির কাজে। মেরামতি কাজের আগে সম্পূর্ণ সুরক্ষা অবলম্বন করে তারা এবং সেই মুহূর্ত ক্যামেরা বন্দি করে ওরা নিজেরাই। রজতের বক্তব্য,

“কিছুটা হলেও এই ভিডিও দেখে অনেকেই Motivate হবে Emergency তে কাজ করার জন্য।


এদিকে আমারা এসব কিছুই জানি না, জানার কোন উপায়ও নেই। রজতের মতো বহু মানুষ প্রতিদিন নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে চলেছে এই লকডাউনের বাজারে। কেউ কিন্তু এদের হয়ে TV তে বিজ্ঞাপন দেবে না, আর দেবেই বা কেন? মানুষ হয়ে যদি মানুষের পাশে না দাড়ায় তবে সে কেমন মানুষ। বিজ্ঞাপন তারাই দিক, যারা এই Emergency এর সময়েও নিজের স্বার্থের কথা ভেবে অবিরাম রাজনীতি করে চলেছে। আমি কারো দালালী করে খবর লিখছি না। লিখলাম রজতের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে। ভালো থাকো রজত।


পূর্ববর্তী পোস্ট
পরবর্তী পোস্ট
সামাজিক মিডিয়া শেয়ার করুনFacebookTwitterWhatsAppEmailLinkedIn
আলোচনায় যোগ দিন

Archives

Please note

This is a widgetized sidebar area and you can place any widget here, as you would with the classic WordPress sidebar.